মোবাইলটা জলে পড়লে যা করবেন, আর যা করবেন না! জেনেনিন বিস্তারিত

সাধের স্মার্টফোনটা জলে পড়ে গেলে বুকের ভেতরটা খালি হয়ে যায়। পানিপ্রতিরোধী না হলে ওটার মৃত্যু অবধারিত ধরে নেওয়া যায়। কিন্তু আসলে তা না। দুর্ঘটনাবশত বা বৃষ্টিতে কিংবা অন্য কোনভাবে মোবাইলটা একেবারে ভিজে যেতে পারে। এক্ষেত্রে কিছু কাজ করতে হবে। আর কিছু কাজ অবশ্যই করবেন না। এতে করে আপনার ফোনটা বেঁচে যেতে পারে। এখানে জেনে নিন সেইসব পরামর্শ।

যা করবেন না
এখানে আগেভাগেই জেনে নেওয়া যাক কোন কাজগুলো করতে যাবেন না। এগুলো নিয়ে মাথা ঘামানো মানেই যন্ত্রটার ক্ষতি করা। যা করবেন না তা জেনে নিন-

১. জলে পড়া মোবাইল নিয়ে নির্মাতার ওয়ারেন্টির সুবিধার অপেক্ষায় থাকবেন না। কারণ, জলে পড়ার ওয়ারেন্ট ওরা দেবে না। নির্মাতারা কেবল নির্মাণত্রুটি পেলেই সেবা দেবে। আর যদি সেখানে নিয়েই যান, তবে ঘটনা লুকানোর চেষ্টা করবেন না। এতে করে আপনি উপকার পেলেও পেতে পারেন।

২. হেয়ারড্রায়ার দিয়ে ফোন শুকাবেন না। এতে করে স্পর্শকাতর ইলেকট্রনিক অংশগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। আর ভুল করে পানি শুকানোর জন্যে গরম কোনো যন্ত্রের মধ্যেও রাখবেন না। ওভেন বা রেডিয়েটরে তো রাখবেন না।

৩. কোনো সুইচ চাপবেন না। এতে করে পানি আরো বেশি পরিমাণে ঢুকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এতে শর্টসার্কিট হবে। হয়তো বেঁচে যেতো মোবাইলটা। কিন্তু স্রেফ একটা সুইট চাপার কারণে নষ্ট হয়ে যাবে। তাই কোনো সুইচ বা পোর্টে খোঁচাখুঁচি করবেন না কোনভাবেই।

যা করবেন
এখন কী কী করতে হবে তা জেনে নিন-
১. আসলে প্রথমে যে কাজটা করা জরুরি তা হলো ফোনটাকে বন্ধ করে দেওয়া। কিন্তু আগেই বলা হয়েছে, সুইচ চাপা ঝুঁকিপূর্ণ। তাই অন-অফের সুইচ আর এর চারপাশে দ্রুত মুছে নিয়ে মোবাইলটা বন্ধ করে দিন। এতে করে আরো বেশি ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতেও পারে যন্ত্রটি।

২. বন্ধ করার পর একটি শুকনো কাপড়ে মোবাইলটি ভালোমতো মুছে ফেলুন। এবার একটি টিস্যু বা পেপার তোয়ালেতে মুড়ে রেখে দিন। এতে বাড়তি জল শুষে নেবে ওগুলো। কোনো অ্যাক্সেসরিজ লাগানো থাকলে তা খুলে ফেলুন। সিমকার্ড বের করে নিন। মেমোরি কার্ডও বের করে নিন। এবার বিভিন্ন কোণ থেকে মোবাইলটা ঝাঁকাতে থাকুন। এতে করে ভেতরে কোনো জল থাকলে বের হয়ে আসবে।

৩. এবার আসল কাজ। বাড়িতে যেখানে চাল রেখেছেন সেখানে মোবাইলটি রেখে দিন। সবচেয়ে ভালো হয় কোনো এয়ারটাইট বাক্সে চাল নিয়ে তারমধ্যে মোবাইলটি রাখতে পারলে। চালের ভেতরে স্মার্টফোনটি ডুবিয়ে দিন। চাল কিন্তু আর্দ্রতা দারুণভাবে শুষে নিতে পারে। এতে অবশ্য চালের গুঁড়া লেগে যাবে। কিন্তু মোবাইল বাঁচবে। এভাবে ২৪-৪৮ ঘণ্টা মোবাইলটি রেখে দিতে হবে।

৪. কড়া সূর্যালোকেও মোবাইলটি রেখে দিতে পারে। এতে করে জল শুকিয়ে যাবে। তবে এটা করতে গেলে মোবাইলে ব্যাক কাভার এবং ব্যাটারি সব খুলে নেবে। রোদ্রে মোবাইলটাকে যতটা খোলামেলা রাখা যায় সেভাবেই রাখবেন।

৫. আশা করা যায়, মোবাইলটা ভালো হয়ে যাবে। খুব বড় দুর্ঘটনা না ঘটে গেলে অন্তত মোবাইলটা আবারো চালু হবে। আর চালু হওয়ামাত্র সব তথ্যের ব্যাকআপ নিয়ে নিন। ভাগ্য ভালো থাকলে মোবাইলটা আগের মতোই চলবে।
সূত্র : গেজেটস

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *